রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৯:২৫ অপরাহ্ন

সামুদ্রিক মাছে সরগরম পিরোজপুর, একদিনে ৪০ লাখ টাকার কেনাবেচা

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০২২
untitled-3-20221212154943

বিভিন্ন সামুদ্রিক মাছের আমদানিতে সরগরম হয়ে উঠেছে পিরোজপুুরের পাড়েরহাট মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র। প্রতিদিন সাগর থেকে ফেরা ট্রলার বিভিন্ন ধরনের মাছ নিয়ে আসে এ অবতরণ কেন্দ্রে। এখানে মৌসুমে প্রতি দিন ১৫ থেকে ২০ টি ট্রলার মাছ নিয়ে ঘাটে ফেরে। আর প্রতিদিন প্রায় এ বাজারে ৩৫ থেকে ৪০ লাখ টাকার মাছ কেনাবেচা হয়।

সরেজমিনে দেখা যায়, পিরোজপুরের পাড়েরহাট মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে সমুদ্র থেকে নানারকম মাছ নিয়ে হাজির হন জেলেরা। বিভিন্ন সব সুস্বাদু মাছের ভিড়ে স্থানীয় মাছের দেখা মেলা ভার। এ জেলার মানুষের সামুদ্রিক মাছের প্রতি আগ্রহ বেশি থাকায় বছরের এ সময়টিতে সামুদ্রিক মাছের ট্রলারগুলোই এ অবতরণ কেন্দ্রে বেশি ভিড় করে। এখানে ছোট ইলিশ ৬০০ টাকা, বড় ইলিশ ১০০০ টাকা, পোমা ৫০০ টাকা, লাক্ষ্যা মাছ ১০০০ টাকা, পাঙ্গাস ১৫০ টাকা, জাভা – ৪৫০ টাকা, তুলা ডাডি ৩৫০ টাকা, মরমা মাছ ৪৫০ টাকা, ভোল মাছ ৮০০ টাকা, তেলাপিয়া ২২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

মৎস্য ব্যবসায়ী নাছির হাওলাদার বলেন, বর্তমানে শীতের সময়টিতে যে পরিমাণ মাছ পাওয়ার কথা সেই পরিমাণ মাছ পাওয়া যাচ্ছে না। তাই স্বাভাবিকের চেয়ে দাম একটু বেশি। আর মাছের সরবরাহ মোটামুটি। পিরোজপুরের মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রে ট্রলারের আমদানি থাকলেও জেলেদের জালে তেমন মাছ ধরা না পড়ায় বাজারে সামুদ্রিক মাছের দাম তুলনামূলক একটু বেশি।

জেলে হাবিবুর রহমান বলেন, সামুদ্রিক মাছের চাহিদা রয়েছে পিরোজপুর জেলায়। এই চাহিদায় জমজমাট হয়ে ওঠে পাড়েরহাটের এই মৎস্য বন্দর। তেলের দাম বৃদ্ধিসহ নানা সমস্যায় মাছের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই ক্রেতা একটু কম আসছে।

পাড়েরহাট মৎস্য অবতরণ কেন্দ্রের ট্রালার মালিক মো: জাকির হোসেন বলেন, বিগত দিনে শীতের এই সময়টিতে মাছের দাম অনেক কম ছিল কিন্তু এ বছর তুলনামূলক মাছের দাম বেশি। কারণ তেলের দাম বৃদ্ধিতে সমুদ্রে ট্রলার পাঠিয়ে যে খরচ হয় সে পরিমাণ মাছ পাওয়া যায় না বিধায় মাছের দাম বেশি। সমুদ্রে ভারতীয় ট্রলার মাছ ধরে নিয়ে যাওয়ায় চাহিদা মত মাছ পাওয়া যাচ্ছে না।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল বারী বলেন, আমাদের জেলায় পাড়েরহাট মৎস্য বন্দর সবথেকে বড় সামুদ্রিক মাছের বাজার। যার মাধ্যমে জেলার সামুদ্রিক মাছের প্রচুর চাহিদা পূরণ করেন জেলেরা। আমাদের সার্বিক নজরদারি রয়েছে এই বন্দরের উপর। এই বন্দর থেকে মাছ বিক্রি করে একটি বড় ধরনের আয় হয় জেলেদের।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর