শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৩৬ অপরাহ্ন

পদ্মা সেতু : অভূতপূর্ব প্রকৌশল কর্মকাণ্ড

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২২
IMG-20220921-WA0013-768x576 (1)

গতকাল বুধবার সন্ধ্যে সাড়ে ছয়টায় নগরীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে ‘পদ্মা সেতু : একটি অভূতপূর্ব প্রকৌশল কর্মকা-’ শীর্ষক মুক্ত আলোচনা অনুষ্ঠানে তিনি পদ্মা সেতু নির্মাণে ‘বির্ডিং ড্রিমস’ নামক স্লাইড শো করার পাশাপাশি পদ্মা সেতুর কাজ করতে গিয়ে তার বিভিন্ন বিষয়ের অভিজ্ঞতা শেয়ার করেন।

তিনি আরো বলেন, আমি একটু ঘাবড়ে যাই। তখন বলি, আমার স্যার অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী যেহেতু আছেন, উনি থাকলে আমি পারব। উনি তখন স্যারকে ডাকলেন। স্যার বললেন, পারবেন। আমি স্যারের দিকে তাকিয়ে আছি। স্যার বললেন, সবকিছু রেডি আছে। আমি বুঝে ফেললাম, সবকিছু রেডি আছে, শুধু টাকা নাই।

মূলসেতু, নদীশাসন, জাজিরা সংযোগ সড়ক, মাওয়া সংযোগ সড়ক ও দুই পাড়ে সার্ভিস এরিয়া তৈরি-এই পাঁচ ভাগে সেতুর কাজ শুরু হয়েছিল। এর মধ্যে ২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর মূলসেতু নির্মাণ ও নদীশাসন কাজের উদ্বোধন করেন আমাদের প্রধানমন্ত্রী।

নির্মাণ কাজে বেগ পেতে হলেও নিজেদের ব্যবস্থাপনায় কাজ করায় সক্ষমতা ও সাহস দেখানোর বড় সুযোগ পেয়েছেন জানিয়ে অধ্যাপক বসুনিয়া বলেন, নদীশাসনে বড় একটা চ্যালেঞ্জ ছিল, যা করেছে চীনের সিনোহাইড্রো করপোরেশন। তাদের নামে অনেক অভিযোগ আসল। আমরা ক্রসচেক করে দেখলাম ওয়ার্ল্ড ওয়াইড নদীশাসনে তাদের অভিজ্ঞতা ভালো। তিনটা কোম্পানি বিট করল, তারা প্রথম হলো। আমরা তাদেরই কাজ দিলাম।
এরই মধ্যে পদ্মার দুই পাশে ১৪ কিলোমিটার এলাকার তীর তৈরি করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, সেতু রক্ষায় ব্যবহার করা হয়েছে ৮০০ কেজি ওজনের একেকটি জিওব্যাগ। নদীর তলদেশে ঢাল তৈরির জন্য ভারতের ঝাড়খ- থেকে আনা একেকটি এক টন ওজনের পাথর ফেলা হয়েছে। নদীশাসনে ব্যয় হয়েছে ৯ হাজার কোটি টাকা, যা এ কাজে পৃথিবীর সবচেয়ে ব্যয়বহুল।

বেশি বৃষ্টি হলে প্রমত্তা পদ্মায় সাধারণ নদীর তুলনায় স্রোত ও ঘনত্ব বেড়ে যায়। পলি জমে অনেক বেশি। সে কারণে নৌযান চলতে যাতে সমস্যা না হয়, সেজন্য পানি থেকে ৭০ ফুট উঁচুতে সেতু করা হয়েছে।

তিনি বলেন, এক বছরে ২৫-৩০ ফুট পলি জমে পদ্মায়। দুই তলার সমান পলি জমে গেলে বড় নৌকা যাবে কী করে? সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছিল।

সেতুর নিচে নদীতে ৪০টি ও দুই পাড়ে দুটি পিলার (খুঁটি) বসানো হয়েছে। সেতুকে টেকসই করতে নদীর অংশের খুঁটির নিচে চীন থেকে আনা তিন মিটার ব্যাসার্ধের ১২২ মিটার গভীর পর্যন্ত ইস্পাতের পাইল বসানো হয়েছে; যা বিশ্বের সবচেয়ে গভীর ও মোটা পাইল। কোনো নদীতে এত গভীরতম পাইলিং হয়নি । এটা করতে আমাদেও এক বছরের চেয়ে সময় বেশি লেগেছিল। এটা আমাদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ ছিল।
‘পানির গভীরতা বেশি থাকায় মাওয়া অংশে পাইল বসাতে সমস্যা হওয়ার কারণে সেতুর নকশায় পরিবর্তন আনতে হয়েছে বলেও জানান এই প্রকৌশলী। টেকনিক্যাল ভিউ থেকে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল, এক জায়গায় আমরা দেখলাম পাইলের মাথায় মাটি ভালো না। মাটি একটু দুর্বল। ওই মাটির মধ্যে ক্লে আছে। হয় ক্লে লেয়ার পার করে দিতে হবে, নইলে ক্লে লেয়ারের তিন মিটার ওপরে পাইল ছাড়তে হবে। তিন মিটার ওপরে ছাড়তে হলে পাইলের সংখ্যা বাড়িয়ে দিতে হবে। আমরা তখন ৬টার জায়গায় ৭টা পাইলে গেলাম। জাপানের দুজন সয়েল এক্সপার্টসহ আরো কয়েকজন দেখলাম। পরে ২২টা পিলারে ৭টা করে পাইল দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, পাইলগুলো করার পরে ওয়েল্ডিংয়ে কোনো ক্র্যাক আছে কিনা সেটার জন্য এক্সরে করতে হয়। সেটা করা হয়েছে। তৈরির পর গুণগত মান আবার যাচাই করা হয়েছে। কোথাও কোনো গাফিলতির স্কোপ নাই। কংক্রিট এবং স্টিল দিয়ে তৈরি দ্বিতল এই সেতুর নকশা করেছে এইকম, স্পেক ইন্টারন্যাশনাল, এসিই কনসালটেন্স এবং নর্থ ওয়েস্ট কনসালটেন্স লিমিটেড।

অধ্যাপক বসুনিয়া বলেন, চীনারা কাজ পেয়ে জানাল, স্টিল দিয়ে কাজ করবে না। স্টিলের প্লেট কেটে কেটে করবে। সবকিছু চীনে হবে, সেখানে কোয়ালিটি কন্ট্রোল হবে। আমরা প্রথমবার উহানে গেলাম। প্লেট, কোয়ালিটি দেখে সন্তুষ্ট হলাম। এসে বললাম, এখানকার ইঞ্জিনিয়ার ওখানে পাঠাতে হবে। তিনি ওখানে থাকবেন, দেখভাল করবেন। ওখান থেকে প্লেটগুলো এসেছে, পাইলের প্লেটগুলো প্রথমে এসেছে। পাইলগুলো ১০ ফুট ডায়ামিটারের। প্লেটগুলো বাঁকিয়ে ওয়েল্ডিং করেছে। এই ওয়েল্ডিং বেশিরভাগই বাঙালিরা করেছে, চীনারাও ছিল। তিনি জানান, পদ্মা সেতু প্রকল্পের ৪ হাজার প্রকৌশলী, কারিগর ও টেকনিশিয়ানের মধ্যে পাঁচশর বেশি ছিল বাঙালি।

সেতুর সব উপকরণে সর্বোচ্চ মান নিশ্চিতের চেষ্টা করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ব্রিজটা যে বিয়ারিংয়ের ওপর বসেছে, সেটা একটা লেটেস্ট বিয়ারিং, পেন্ডুলাম বিয়ারিং। আমরা চীনে এর কোয়ালিটি টেস্টে গেলাম। এসময় ফুল স্কেলে লোড দেওয়ার পরে এখানে ভূমিকম্প দেখানো হয়। অনেকখানি নড়ে আবার জায়গায় চলে আসল। বিয়ারিং খুলে দেখা হলো- ভেতরে কোনো ফাটল, স্ক্রাস নাই। তিনবার করা হলো এমন। তারপরও আমরা সেটা আমেরিকায় পাঠিয়ে টেস্ট করাই। একটি বিয়ারিংয়ের ওজন ১৫ টন। পদ্মা সেতুতে যে ধরনের বিয়ারিং ব্যবহার করা হয়েছে তা পৃথিবীর অন্য কোথাও ব্যবহার হয়নি বলে জানান শামীম জেড বসুনিয়া। এসব বিয়ারিং ৯ মাত্রার ভূমিকম্পেও সেতুকে টিকিয়ে রাখবে। মাঝে বেশ কয়েকবার আলোচনায় এসেছে পদ্মা সেতুর খুঁটিতে ফেরির ধাক্কার ঘটনা। তবে পদ্মা সেতুতে অত্যাধুনিক সব প্রযুক্তি ব্যবহার করায় এসব নিয়ে সংশয়ের কিছু নেই বলে জানান এই অধ্যাপক।

ফেরি কীভাবে পিয়ারে ধাক্কা দিয়েছে সে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, দুই পিলারের মাঝে পরিষ্কার সাড়ে ৪০০ ফুট জায়গা আছে। ফেরির প্রস্থ ৫০ ফুট। তাহলে ধাক্কা লাগবে কেন?

কাণায় না লেগে যদি পেটে সরাসরি লাগত, তখন ফেরিটা উল্টে যেত। পিলার তো ফেরির চেয়ে ১০ গুণ শক্তিশালী। পিলারের কিছু হবে না। পদ্মা সেতুতে প্রায় ৩ লাখ টন রড, আড়াই লাখ টন সিমেন্ট, সাড়ে ৩ লাখ টন বালু, প্রায় ২ হাজার ১০০ টন বিটুমিন লেগেছে। এসব উপকরণ দেশ থেকেই সংগ্রহ করা হয়েছে। দেশের সিমেন্ট এবং রডের মান আন্তর্জাতিক মানসম্মত দাবি করে অধ্যাপক বসুনিয়া বলেন, দেশীয় যে প্রতিষ্ঠানগুলো কাজ করেছে, তারা খুব স্মার্টলি কাজ করেছে। তাদের যথেষ্ট সক্ষমতা রয়েছে। শুধু তারা যথাযথ ইক্যুইপমেন্ট পাচ্ছে না। ২০২০ সালে নদীতে ভাঙন শুরু হলে লুক্সেমবার্গ থেকে আনা ১৯২টি গার্ডারসহ অনেক নির্মাণ উপকরণ পানিতে চলে যায়।

শামীম জেড বসুনিয়া জানান, এই সেতুতে ২০টির বেশি দেশের জনবল, যন্ত্র ও উপকরণ ব্যবহার হয়েছে। সাড়ে ৩ হাজার টন ওজনের পৃথিবীর সবচেয়ে বড় হ্যামার এই সেতুতে ব্যবহার হয়েছে। ক্রেন ব্যবহার হয়েছে ৪ হাজার টনের। সেতুতে ব্যবহার করা কংক্রিটের কিছু পাথর দেশ থেকে নেওয়া হয়েছে। বেশিরভাগই আনা হয়েছে ভারত, ভুটান ও সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে। কংক্রিটের গুণগত মান যাচাই করে তারপর কাজ করা হয়েছে। বিশেষ কিছু রড আনা হয়েছে চীন থেকে। সংযুক্ত আরব আমিরাত ও যুক্তরাজ্য থেকে অ্যালুমিনিয়াম নেওয়া হয়েছে।

পদ্মা সেতু তৈরি হওয়ায় পুরো দেশ যেমন গর্বিত হয়েছে, তেমনি অনেকের মধ্যে কৌতূহলও রয়েছে। এই সেতু ‘জান চায়, রক্ত চায়’ এ ধরনের কথাও শুনতে হয়েছে বলে জানান ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের এই এমিরেটাস অধ্যাপক। তিনি বলেন, হ্যাঁ, পদ্মা সেতু কাজ চলাকালীন মোট ১০ জন মারা গিয়েছে। একজন মানুষ যে কোন কারণে মারা যেতে পারে। জন্ম হয়েছে তার মৃত্যু হবে। স্বাভাবিক বিষয়।

পদ্মা সেতুর নির্মাণে ‘স্ট্রাকচারাল নানা চ্যালেঞ্জ’ মোকাবিলা করতে হলেও বিশ্বব্যাংক সরে যাওয়ার পর কাজ পুরো বন্ধ হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি কাটিয়ে উঠাই দেশের জন্য সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ ছিল বলে মনে করেন অধ্যাপক বসুনিয়া।

ইঞ্জিনিয়ার্স ইনিস্টিটিউশন বাংলাদেশ (আইইবি) চেয়ারম্যান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেনের সভাপতিত্বে মুক্তালোচনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জিপিএইচ ইস্পাত-এর অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলমাস শিমুল, প্রকৌশলী সাদেক মাহমুদ চৌধুরী, প্রকৌশলী মানজারুল খোরশেদ আলমসহ অন্যরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর