https://channelgbangla.com
সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০৭:১৫ অপরাহ্ন

রাশিয়ার জন্য সারাবিশ্বকে শাস্তি দেয়া উচিৎ নয়: প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই, ২০২২
image-207185-1657177877bdjournal

একটি দেশকে শাস্তি দিতে গিয়ে সারা বিশ্বের মানুষকে শাস্তি দেয়ার ব্যাপারটা কোনোভাবেই উচিত নয় বলেই মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশ্বের মানুষকে এভাবে শাস্তি দেয়া থেকে সরে আসতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বানও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) রাজধানীতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নবনির্মিত ৮তলা অফিস ভবন উদ্বোধন এবং ‘বঙ্গবন্ধু কূটনৈতিক উৎকর্ষ পদক’ প্রদান অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

অবরোধ আরোপ করে কোনো দেশ বা জাতিকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না, সেটা প্রমাণিতও হয়েছে বলে মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আশা করি যে, একটি দেশকে শাস্তি দিতে গিয়ে বিশ্বের মানুষকে শাস্তি দেয়া, এখান থেকে সরে আসাটাই বোধহয় বাঞ্ছনীয় এবং সেটা সকলেই চাইবে। আমি এটা মনে করি।’

প্রধানমন্ত্র বলেন, করোনাভাইরাস মহামারির অভিঘাত থেকে অর্থনীতি যখন পুনরুদ্ধার হতে শুরু করেছে, তখনই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ আবারও বিশ্ব অর্থনীতিকে ও বিশ্বের মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে।

তিনি বলেন, ‘তার ওপর আমেরিকা যে স্যাংশন (অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা) দিয়েছে, এই স্যাংশন দেয়ার ফলে আমাদের পণ্য প্রাপ্তিতে বা যেগুলো আমরা আমদানি করি, সেখানে বিরাট বাধা আসছে। শুধু তাই নয়, পরিবহন খরচ বেড়ে গেছে এবং আমরা কোথায় আমাদের প্রয়োজনীয় পণ্যসামগ্রী পাব, সেই প্রাপ্তির ক্ষেত্রটাও সংকুচিত হয়ে গেছে।

প্রধানমন্ত্রী আরও যোগ করেন, ‘এই প্রভাবটা শুধু বাংলাদেশ না, আমি মনে করি এটা আমেরিকা, ইউরোপ, ইংল্যান্ড থেকে শুরু করে সারা বিশ্বব্যাপী এর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, মানুষ কিন্তু কষ্ট ভোগ করছে।’

তিনি বলেন, ‘এটা আসলে উন্নত দেশগুলোর বিশেষভাবে বিবেচনা করা উচিত বা আমেরিকার এটা বিবেচনা করা উচিত, তারা যে স্যাংশন দিচ্ছে, তাতে যে তাদের দেশের লোকও কষ্ট পাচ্ছে, সেদিকেও কিন্তু তাদের দৃষ্টি দেয়া উচিত বলে আমি মনে করি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই স্যাংশন যাদের বিরুদ্ধে দিচ্ছেন, তাদের আপনারা ক্ষতিগ্রস্ত করতে চাচ্ছেন, কিন্তু তারা আসলে কতটা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে? তার থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত সাধারণ মানুষ হচ্ছে সব দেশে। সেই উন্নত দেশ, উন্নয়নশীল দেশ, সকল দেশের মানুষ কিন্তু বা যারা নিম্ন আয়ের দেশ, সব দেশগুলো কিন্তু কষ্ট পাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমি মনে করি, স্যাংশন দিয়ে কোনো দেশ বা জাতিকে নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। সেটা নিশ্চয়ই এখন দেখতে পাচ্ছেন। তার প্রভাবটা নিজেদের ওপর এসেও পড়ে। কাজেই এই স্যাংশন তুলে দেয়া এবং পণ্য পরিবহন আর যুদ্ধ যারা করতে থাকেন, কিন্তু পণ্য পরিবহন বা আমদানি-রপ্তানিটা যেন সহজভাবে হয় আর সাধারণ মানুষ যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।’

বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘সেখানে সমস্যায় পড়ে গেছে অনেক উন্নত দেশও। আজকে আমরা যেটা খবর পাই বিভিন্ন দেশ থেকে, আমাদের অনেক লোক সেখানে বসবাস করে, প্রত্যেকের জীবনটা দুর্বিষহ হয়ে যাচ্ছে। আর আমার দেশে, আমি সবসময় চেষ্টা করছি, আমাদের যে মাটি, মানুষ আছে, আমরা উৎপাদন বাড়াব। আমাদের খাদ্যটা যেন আমরা নিজেরাই উৎপাদন করে চলতে পারি, সে ব্যবস্থাটাও করব, সঙ্গে যদি কাউকে সাহায্য করতে পারি, সেটাও করব।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘উৎপাদন বাড়াতে গেলে আমাদের সার প্রয়োজন, আমাদের ডিজেল প্রয়োজন, আমাদের বিভিন্ন উপকরণ প্রয়োজন। সেটা আমরা পাচ্ছি না। কাজেই এভাবে মানুষকে কষ্ট দেয়ার কী অর্থ থাকতে পারে, আমি ঠিক জানি না।’

এভাবে অবরোধ আরোপ করে সমগ্র বিশ্বের মানুষের জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলাকে মানবাধিকার লঙ্ঘনের সঙ্গেও তুলনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

জিবাংলা টেলিভিশনের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।

আমাদের সঙ্গে যুক্ত থাকুন ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে ফলো করুন ফেসবুক গুগল প্লে স্টোর থেকে Gbangla Tv অ্যাপস ডাউনলোড করে উপভোগ করুন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর