https://channelgbangla.com
বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৯:০৫ পূর্বাহ্ন

যশোরে ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে হত্যা চেষ্টা

হাবিবুর রহমান হবি, যশোর
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৩১ মে, ২০২২
pIc

যশোর পৌরসভার ৯ নাম্বার ওয়ার্ড কাউন্সিলর এডভোকেট আসাদুজ্জামান বাবলুকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে দুর্বৃওরা, গুরুতর অবস্থায় তাকে যশোর আড়াইশ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় তাকে ঢাকায় রেফার করা হয়।

একদিন আগে আফজাল হত্যাকান্ডের জের হিসেবেই এ হত্যা চেষ্টা বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। এ ঘটনায় দলীয় বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ এলকাবাসী ও পৌর পরিষদের লোকজন তাকে দেখতে যান। ঘটনার পরপরই অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসাইনসহ যশোর কোতোয়ালি পুলিশের কয়েকটি টিম হাসপাতাল ও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। কেন তার উপর হামলা এটা পরিস্কার করেনি পুলিশ। তবে স্থানীয়রা বলছেন, ২৯ মে রাতে এলাকার আফজাল হত্যাকান্ডের জের হিসেবে এই হামলা ও হত্যার চেষ্টা।

স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, ২৯ মে যশোরের শংকরপুরের চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের হাতে খুন হয় ১০ মামলার আসামি আফজাল হোসেন (২৮)। ওই হত্যাকান্ডে যশোরের কোল্ড স্টোর মোড় এলাকার সুজন ওরফে ট্যারা সুজনসহ চাতালের মোড় এলাকার ৭/৮ জনের একটি চিহ্নিত চক্র অংশ নেয়। আর হত্যা মিশন সদস্য সুজনসহ চক্রের সদস্যরা আসাদুজ্জামান বাবলুর লোকজন বলে এলাকায় প্রচার রয়েছে। আফজাল হত্যাকান্ডে এডভোকেট আসাদুজ্জামান বাবলুর প্রত্যক্ষ ইন্ধন রয়েছে বলেও প্রচার করে আফজালের সহযোগীরা। ঘটনার রাত থেকেই ক্ষুব্ধ আচরণ করে খোঁজাখুঁজি করছিল বাবলুকে। ঘটনার পরের দিন গতকাল ৩০ মে রাত ৮ টায় দাফন সম্পন্ন হয় নিহত আফজালের।

তার জানাজায় অংশ নেন কাউন্সিলর বাবলু। এতে ক্ষুব্ধ হয় আফজালের সহযোগীরা। যে কুড়াল দিয়ে আফজালের কবরের বাঁশ কাটা ও ফাঁড়া হয়, দাফন শেষে সেই কুড়াল দিয়েই হামলা করা হয় বাবলুর উপর। রাত সাড়ে ৮ টায় নাজির শংকরপুরের জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে নিহত আফজালের একান্ত কাছের লোক সাকিব কুড়াল দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা করে বাবলুকে। জিরো পয়েন্ট মোড়ে ফেলে এই হত্যা চেষ্টা করা হয়। স্থানীয়রা ছুটে এসে বাবলুকে উদ্ধার করে রাত ৮টা ৪৫ মিনিটের দিকে তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় ওই রাতেই তাকে ঢাকা মেডিকেলে রেফার করা হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, পৌর কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে বাবলু এলাকায় কয়েকটি গ্রুপ গড়ে তোলেন। বিতর্কিত ২০/৩০ জনের একটি চক্রকে কয়েকটি গ্রুপে ভাগ করে দিয়ে নানা কর্মকান্ড পরিচালনা করতেন। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করতে তাদের ব্যবহার করতেন। এদিকে তার একটি গ্রুপে প্রতিপক্ষ হিসেবে মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে ২৯ মে খুন হওয়া আফজাল। সে বাবলুর কয়েকটি গ্রুপকে টিক্কা দিয়ে এলাকায় নানা কারবার চালিয়ে যাচ্ছিলো। এ নিয়ে বাবলু পক্ষীয় দুটি গ্রুপের সাথে তার গোলযোগ হয়। আর পরে খুন হয় সে। যে ট্যারা সুজন কুপিয়ে হত্যা করে আফজালকে, সেই সুজন সব সময় চলত বাবলুর সাথে। এতে করে আফজালকে বাবলু খুন করিয়েছে বলে ধারনা করে আফজাল পক্ষীয়রা। আর এই জের ধরেই ৩০ মে রাতে বাবলুর উপর হামলা চলে।

এদিকে হত্যাচেষ্টা ঘটনার ব্যাপারে যশোর কোতোয়ালি থানার ওসি তাজুল ইসলাম জানিয়েছেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়েই এই ঘটনা। প্রতিপক্ষের হামলায় এই ঘটানা ঘটেছে। ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত ও আটকের চেষ্টা চলছে। আফজাল হত্যাকান্ড ঘটনার সাথে এই ঘটনার যোগসূত্রতা আছে কিনা এ ব্যাপারে পরিস্কার তথ্য দেননি তিনি। তবে দ্রুতই জড়িতরা আটক হবে বলে তিনি জানিয়েছেন কেন তার উপর হামলা এটা পরিস্কার করেনি পুলিশ।

জিবাংলা টেলিভিশনের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।

আমাদের সঙ্গে যুক্ত থাকুন ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে ফলো করুন ফেসবুক গুগল প্লে স্টোর থেকে Gbangla Tv অ্যাপস ডাউনলোড করে উপভোগ করুন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর