January 20, 2022, 5:29 pm

কাশি হলে খান কাঁচা পেয়ারা

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৩, ২০২২
  • 65 বার পঠিত
যারা মনে করেন সর্দি, কাশি বা ঠান্ডা লাগলে পেয়ারা খাওয়া উচিত্‍ নয়, তারা শুনুন যে পেয়ারা হল ভিটামিন সি, এ, ই, ফাইবার, আয়রন, ক্যালসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ এবং অন্যান্য সমস্ত খনিজ পদার্থের ভান্ডার। আপনি যদি প্রতিদিন একটি পেয়ারা খান তবে এটি আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে কাজ করে এবং শরীরকে সর্দি ও কাশির প্রভাব থেকে রক্ষা করে।
ঠাণ্ডা, সর্দি ও কাশির সময় এটি খেলে দারুণ উপশম হয়। কিন্তু কাশির সময়, আপনাকে পাকা পেয়ারার পরিবর্তে কাঁচা পেয়ারা খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। কারণ এটি শ্লেষ্মা কমাতে কাজ করে।এর প্রভাব নিয়ে যদি আপনার মনে কোনো বিভ্রান্তি থাকে, তাহলে হালকা আঁচে গরম করে খেতে পারেন। শুধু তাই নয়, পেয়ারা পাতাও ঔষধি গুণে ভরপুর। আয়ুর্বেদে এর পাতা কাশি ও অন্যান্য রোগে ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

ডায়াবেটিস রোগীর পেয়ারা খাওয়া উচিত্‍ কি না, এই সন্দেহও প্রায়শই মানুষের মনে থাকে। এটা ঠিক যে ডায়াবেটিস রোগীদের খুব বেশি মিষ্টি খাওয়া উচিত্‍ নয়। তবে বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞ এই রোগীদের দিনে অন্তত একটি ফল খাওয়ার পরামর্শ দেন। এক্ষেত্রে একটি পেয়ারা খাওয়া যেতে পারে। অনেক গবেষণায় দেখা যায় পেয়ারা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কাজ করে।

পেট পরিষ্কার না থাকলে অবশ্যই পেয়ারা খান। পেয়ারাতে রয়েছে ডায়েটারি ফাইবার যা আপনার পেট মেরামত করতে কাজ করে। তবে রাতে এটি খাওয়া সম্পূর্ণ এড়িয়ে চলুন।

আপনি যদি আপনার ওজন কমাতে চান, তাহলে অবশ্যই পেয়ারা খান। এতে বেশি ক্যালোরি থাকে না, সেই সঙ্গে ডায়েটারি ফাইবারের কারণে এটি দীর্ঘক্ষণ পেট ভরা অনুভব করায়। তাই এটি ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়ক।

ক্যান্সার প্রতিরোধেও পেয়ারা উপকারী বলে মনে করা হয়। এতে পাওয়া শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ফ্রি র‌্যাডিক্যাল থেকে রক্ষা করে। এছাড়াও, লাইকোপিন, কোয়ারসেটিন এবং পলিফেনলগুলিও ক্যান্সারের কোষগুলিকে বাড়তে বাধা দেয়। এর পাতা ক্যান্সারের চিকিত্‍সায়ও কার্যকর বলে বিবেচিত হয়েছে।

পেয়ারায় কলার সমান পটাশিয়াম রয়েছে, যা হৃদযন্ত্রের স্বাস্থ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি শরীরের খারাপ কোলেস্টেরল কমায় এবং ভালো কোলেস্টেরল বাড়ায়। এতে হার্টের স্বাস্থ্য ভালো থাকে।

বি.দ্র: এখানে দেওয়া তথ্য ঘরোয়া প্রতিকার এবং সাধারণ তথ্যের উপর ভিত্তি করে। এটি গ্রহণ করার আগে দয়া করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। জি বাংলা টিভি এটি নিশ্চিত করে না।

জিবাংলা টেলিভিশনের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।

আমাদের সঙ্গে যুক্ত থাকুন ফেসবুক পেইজে লাইক দিয়ে ফলো করুন ফেসবুক। গুগল প্লে স্টোর থেকে Gbangla Tv অ্যাপস ডাউনলোড করে উপভোগ করুন বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান।

0Shares

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর